1. admin@bdsomoy.com : Bd Somoy : Bd Somoy
মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৬:৪০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
অপরাধী যেই হোক না কেন দোষ করলে শাস্তি তাকে পেতেই হবে : পুলিশ সুপার অস্ত্রসহ আটকের ৫দিনেও নেওয়া হয়নি আইনগত পদক্ষেপ সুনামগঞ্জে সুনামগঞ্জের মনবেগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত বরিশালের কয়েকটি হোটেল থেকে ক্রেতা ও বিক্রেতা গ্রেফতার কৃষকলীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জে বৈদ্যুতিক খুটির সাথে ধাক্কা লেগে ২মোটর সাইকেল আরোহী নিহত সুনামগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত সকল সহকারী শিক্ষক শিক্ষিকার স্মারকলিপি প্রদান সুনামগঞ্জে বুড়িমারী স্থলবন্দরে ৫ ঘন্টা ইন্ডিয়া ও বাংলাদেশের গাড়ি যাতায়াত বন্ধ পরিকল্পনামন্ত্রী মান্নানের হাত থেকে সনদপত্র গ্রহন করেন : আবিদা সুলতানা বেনাপোলে পুলিশের পৃথক অভিযানে গাজা ও হিরোইনসহ দুইজন গ্রেফতার

তেজগাঁও থানায় বিএফডিসি কর্মকর্তার রহস্যজনক মৃত্যু

  • প্রকাশিত : সোমবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৩৫ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২০ জানুয়ারি, ২০১৯, ১০:০০ এএম

ঢাকার রাজধানী তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় পুলিশ হেফাজতে আবু বক্কর সিদ্দিক ওরফে বাবু ( ৪৫) নামে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন- বিএফডিসির কর্মকর্তার রহস্যজনক ভাবে মৃত্যু হয়েছে।

স্ত্রী আলেয়া বেগমের অভিযোগ, শনিবার (১৯ জানুয়ারি) রাতে এক নারীর যৌন হয়রানির মামলায় বাবুকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মধ্যরাতে থানা হাজতে মৃত্যুবরণ করেন তিনি থানায় নির্যাতন করে বাবুকে হত্যা করা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, শনিবার (১৮ জানুয়ারি) মধ্যরাতে কোনো এক সময়ে থানার হাজতে গলায় চাদর পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বাবু। তবে এর আগে শনিবার সন্ধ্যার পর নারী নির্যাতন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের এক মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানা গেছে।
পরিবার সূত্রে জানা যায়, মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক বাবু এফডিসির ফ্লোর ইনচার্জ হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

তার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী জেলার সেনবাগ উপজেলার বালিয়াকান্দি গ্রামে। রাজধানীর মোহাম্মদপুরের চাঁদ উদ্যান এলাকায় দুই সন্তান নিয়ে থাকতেন তিনি। শিল্পাঞ্চল থানার ওসি আলী হোসেন বলেন, এক নারী বাবুর বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলা করেন। শনিবার সন্ধ্যার পর তাকে গ্রেফতার করে থানা হাজতে রাখা হয়। মধ্যরাতের পর হাজতের গ্রিলের সঙ্গে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তিনি।

বিষয়টি টের পেলে সঙ্গে সঙ্গে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হলে ভোর ৪টার দিকে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
আবু বক্করের স্ত্রী আলেয়া ফেরদৌসী ঢাকা মেডিকেল কলেজে (ঢামেক) সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়ার কথা শুনেছি।

এরপর পুলিশই বাবুকে ঢামেকে থাকার কথা জানালে রোববার হাসপাতালে গিয়ে তার লাশ দেখতে পাই। ঢামেক মর্গের ট্রলিতে রাখা অবস্থায় তার গলায় কালো দাগ দেখা গেছে।
তিনি বলেন, বাবুকে মিথ্যা অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে। থানায় নির্যাতন চালিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে।

এফডিসিতে বাবুর সহকর্মী জিএম সাঈদ বলেন, শনিবার তারা একসঙ্গেই কাজ করেছেন, বিকালেও চা খেয়েছেন। রাতে তাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে থানা থেকে ফোন করে বাবুর বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়টি জানানো হয়। তিনি বলেন, পুলিশের কাছে জানতে পারি-রোকসানা আক্তার নামে এক নারী আবু বক্করের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে থানায় অভিযোগ করেছেন।

সেই মামলায় তাকে আটক করা হয়েছে। তার সন্দেহ, থানা হাজতে বাবুকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। বাবুর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার মতো অন্যান্য সহকর্মীরাও বাবুর মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধ্যান করে দোষীদের বিচার দাবি চেয়েছেন। থানা সূত্রে জানা যায়, শনিবার সন্ধ্যার পর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার পুলিশের একটি দল তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

ওই সময়ে নিজেকে এফডিসির কর্মী পরিচয় দিলে পুলিশ এফডিসির প্রশাসনিক কর্মকর্তা রফিকুল ইসলামকে রাত পোনে ৮টায় কল করে পরিচয় নিশ্চিত হন। পরে থানা হেফাজতে সে অসুস্থ হয়ে পড়লে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইফতেখার ইসলাম বোববার ভোররাত ৪টার দিকে তাকে অচেতন অবস্থায় ঢামেকে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এফডিসির প্রশাসনিক কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, শনিবার রাত পৌনে ৮টায় ফোনে পুলিশ আবু বক্কর সম্পর্কে জানতে চায়। এ সময় তিনি এফডিসিতে চাকরি করেন বলে জানাই। পরে শুনেছি পুলিশ হেফাজতে তিনি মারা গেছেন। এ বিষয়ে তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, মৃতের পরিবার হত্যার অভিযোগ করতেই পারে।

রাত ৩টার পরের ঘটনা। থানার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ চাদর দিয়ে ফাঁস নেওয়ার চেষ্টার বিষয়টি স্পষ্ট দেখা গেছে। দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের নজরে আসা মাত্র তাকে উদ্ধার করে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৭ । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।